প্রশ্নবিদ্ধ ফুটবলের জন্ম ইতিহাস!! চীনেই কি ফুটবলের জন্মস্থান?

চীনেই কি ফুটবলের জন্মস্থান প্রশ্নবিদ্ধ ফুটবলের জন্ম ইতিহাস

0

- Advertisements -

যদি বলা হয় পৃথিবীতে সবথেকে জনপ্রিয় খেলা কি? তাহলে অধিকাংশই বলবে ফুটবল। কিন্তু ফুটবল এর জন্ম কোথায় আমরা সবাই  জানিনা। চলুন যেনে নেয়া যাক  ফুটবলের আসল জন্ম ইতিহাস।

ঐতিহাসিকের মতে ফুটবল খেলার আবিষ্কারক চীন দেশ হলেও বিভিন্ন তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে দেখা যায়, গ্রিক সভ্যতা এবং রোমান সভ্যতায় ফুটবল খেলার চল ছিল। খ্রিস্টপূর্ব ৩৫০ সালের দিকে গ্রিক ও রোমানরা বল দিয়ে বিভিন্ন ধরনের খেলা খেলত। গ্রিক ও রোমানদের বল নিয়ে বিভিন্ন ধরনের খেলার মধ্যে কিছু কিছু খেলা তারা পা দিয়ে খেলত।

গ্রিক খেলা Episkyros এর উৎপত্তি হয়েছে রোমান খেলা Harpastum থেকে। সে সময়ের দু’জন লেখক এর লেখা থেকে এই বিষয়ে তথ্য উপাত্ত পাওয়া গিয়েছে। Antiphanes নামক এক গ্রিক নাট্যকার তার বিভিন্ন লেখাই খেলাগুলো সম্পর্কে বলেছেন। শুধু তিনি একা নন। Clement of Alexandria নামে একজন ক্রিস্টিয়ান দার্শনিকও তার বিভিন্ন লেখায় সে সময়ের খেলাগুলো সম্পর্কে লিখেছেন।

তাদের লেখা থেকেই এই বিষয়ে কিছুটা ধারণা পাওয়া যায়। এছাড়া এই বিষয়ে আরও স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যায় এক রোমান রাজনীতিবিদের লেখা থেকে। Cicero নামক এই রাজনীতিবিদ বলেন, খেলার সময় একজন মানুষ নাপিতের দোকানে দাড়ি কামানোর সময় বলের আঘাতে মারা গিয়েছিলেন এবং যে বল দিয়ে খেলা হতো সে বল গুলো বাতাস দ্বারা পূর্ণ থাকত অনেকটা বেলুনের মত।

- Advertisements -

আরেকটি মতে ফুটবল  খেলার জন্ম হয় যুক্তরাজ্যে। সময়টা ছিল ১২শ শতাব্দী। তবে এই একই মতানুসারে যুক্তরাজ্যের আরও আগে চীনে ফুটবল খেলার প্রচলন ছিল। শুধু তাই নয়, চীনাদের জনপ্রিয় খেলা ছিল এই ফুটবল। তবে সে সময় এই খেলার নাম ছিল ‘ছু চিউই’।

ঘটনাটা আজ থেকে আরও আড়াই হাজার বছর আগের। সে সময় চীনে বেশ ঘটা করে রাষ্ট্রীয়ভাবে ক্রীড়া উৎসবের আয়োজন করা হতো। তবে এই ক্রীড়া উৎসবকে সরাসরি ফুটবল খেলা বলা যাবে না। চীনা ভাষায় খেলাটির নাম ‘টু সু ছু পা’। চীনা ভাষায় ‘টু সু’ এর অর্থ পা দিয়ে লাথি মারা বোঝায় এবং ‘ছু পা’ অর্থ চামড়ার তৈরি বল।

নামের দিক থেকেই বর্তমানের ফুটবল খেলার সাথে পুরোপুরি মিল রয়েছে। তখনকার বল চামড়া দিয়ে তৈরি হয়। তখনকার বল চামড়া দিয়ে তৈরি হতো এবং ভেতরটা পূরণ করা হতো তুলা বা চুল দিয়ে। থাং ও সুং রাজবংশের সময় ‘ছু চিউই’ আরও জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।

বিশ্ব ফুটবলের আন্তর্জাতিক সংস্থা ফিফা প্রথমে প্রাচীন গ্রিক খেলা Episkyros কে ফুটবলের সর্বপ্রথম রূপ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিল। পরে ফিফা মত পরিবর্তন করে ‘cuju’ কে ফুটবল খেলার প্রথম রূপ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ‘cuju’ ছিল চীনের একটি খেলার নাম। চীনা ভাষায় এর অর্থ ‘kick ball’।

এই হল বিশ্ব ফুটবলের ইতিহাস। তবে এখানে একটা প্রশ্ন থেকে যায়। তা হলো – ফুটবলের জনক কে? যদি বলি চীন তাহলে গ্রিক ও রোমানরা যে খেলাটি খেলত সেটিকে অস্বীকার করা হয়। তবে এখানে কথা হল চীনারা তো গ্রিক কিংবা রোমানদের দেখাদেখি ‘টু সু ছু পা’ খেলাটি শুরু করে নি। তাই চীনকেও অস্বীকার করার উপায় নেই।

 

- Advertisements -

Leave A Reply

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More